শিক্ষিকার থাপ্পড়ে কান ফাটল ৫ম শ্রেণির ছাত্রীর

বিডি নিউজ২৩; যশোর জেলার চৌগাছার বহিলাপোতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নারগিস পারভীনের থাপ্পড়ে কানের পর্দা ফেটে গেছে বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী পান্না খাতুনের।

 

সরেজমিনে তদন্তে গিয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান এবং সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা হায়দার আলী বিষয়টির সত্যতা পেয়েছেন।

 

গত রোববার (৬ নভেম্বর) বিদ্যালয় চলাকালিন এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার ওই শিক্ষার্থীকে তার মা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা করতে এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করতে গেলে বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। এর আগে সোমবার রাতে ওই ছাত্রীর মা মোবাইল ফোনে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে এ বিষয়ে বিচার চেয়ে অভিযোগ করেন।

 

মঙ্গলবার ওই শিক্ষার্থীর মা যশোর জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগের অনুলিপি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য যশোরের জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে দিয়েছেন।

 

লিখিত অভিযোগ পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান ওই বিদ্যালয়ে গিয়ে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হন।

 

তদন্তকালে অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক নারগিস পারভীন একটি থাপ্পড় মেরেছেন বলে লিখিতভাবে স্বীকার করেছেন বলে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

 

লিখিত অভিযোগে শিক্ষার্থী পান্না খাতুন জানায়, গত রোববার (৬নভেম্বর) দুপুরে সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুর রহমান ওই বিদ্যালয় পরিদর্শনে যান। তিনি যখন অফিসে বসে প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বলছিলেন তখন সহকারী শিক্ষক নারগিস পারভীন ওই শিক্ষার্থীকে একটি ঝাঁটা এনে দিতে এবং আরেক শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ের সিঁড়ি ঘর ঝাড়ু দিতে বলেন। তবে পান্না ঝাঁটা নিয়ে এসে সেখানে রাখলেও অন্য শিক্ষার্থী ঝাড়ু দেয়নি। 

 

ঝাড়ু না দেয়ায় পান্নাকে ডেকে শিক্ষক নার্গিস বলেন, ঝাড়ু দিসনি ঝাঁটা দিয়ে তোর মুখ ভেঙে দেব। তখন পান্না বলে, আপনি কি আমার মুখ বানিয়ে দিয়েছেন? ঝাঁটা দিয়ে ভেঙে দেবেন? তখন শিক্ষক নার্গিস মেয়েটি বাম কানে তিনটি থাপ্পড় মারে। 

 

এসময় মেয়েটি কান্নাকাটি করলে নার্গিস পারভীন তাকে আরও কয়েকটি থাপ্পড় মেরে বলেন, লাগেনি। অভিনয় করছে। পরে মেয়েটি বাড়ি যেয়ে না বললেও সোমবার সন্ধ্যার দিকে মেয়ের গায়ে জ্বর এবং কানে জ্বালা কথা শুনে তার মা বিষয়টি জানতে চাইলে মেয়েটি সব খুলে বলে। পরে মঙ্গলবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে সেখানকার ডাক্তার আকিব হোসেন তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন এবং বলেন কানের পাতলা পর্দা ফেটে যেতে পারে। সেখানে পানি জমে রয়েছে। এরপর মেয়েটি ও তার মা এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দেন।

 

এ বিষয়ে ডাক্তার আকিব বলেন, মেয়েটি কানের পর্দা ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কানের মধ্যে পানি জমে রয়েছে। ওষুধ দেওয়া হয়েছে। শুকালে ভালভাবে বোঝা যাবে। তিনি আরও বলেন, পর্দা ফেটে গেলে অপারেশন করা ছাড়া উপায় থাকবে না।

 

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিষয়টি তাৎক্ষণিক তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট কমপ্লিট করছি। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হবে। তিনি নির্দেশ দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। উপজেলা ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরকে তদন্ত করে দ্রুত রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। এছাড়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তাৎক্ষণিক তদন্ত করে বিষয়টির সত্যতা পেয়েছেন। অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *