• শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন এ্যাডঃ জালাল উদ্দীন উজ্জ্বল বাগমারা বাসিকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক সোহেল রানা বাগমারাবাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন, এমপি আবুল কালাম আজাদ ম্যানেজার নেজামকে উদ্ধার করে পরিবারের নিকট ফিরিয়ে দিয়েছে র‍্যাব দুই হাতুড়ির দাম ১ লাখ ৮২ হাজার, দুটি পাইপ কাটারের দাম ৯২ লাখ টাকা নেশা থেকে ফেরাতে না পেরে কুড়াল দিয়ে সন্তানকে কুপিয়ে হত্যা রাজশাহী টেলিভিশন জার্নালিস্ট ইউনিটের যাত্রা শুরু আরটিজেএফ আহবায়ক সৌরভ হাবিব, সদস্য সচিব মতিউর মর্তুজা টিসিবির পণ্য সরিয়ে ফেলানোর ভিডিও করায় সাংবাদিককে মারধর তাহেরপুর পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র শায়লা পারভিনের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত

পাকিস্তানে তেল লিটার প্রতি এক লাফে ২১৩ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬০৫ রুপিতে

সংবাদদাতা:
সংবাদ প্রকাশ: বুধবার, ১ জুন, ২০২২
Prothom alo news
পাকিস্তানে তেল লিটার প্রতি এক লাফে ২১৩ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬০৫ রুপিতে

বিডি নিউজ২৩/BD News23: পাকিস্তানে প্রতি লিটার ভোজ্যতেল ৬০৫ রুপি। পাকিস্তানে ভোজ্য তেলের দাম লিটার প্রতি এক লাফে ২১৩ রুপি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬০৫ রুপিতে। এর ফলে দেশটিতে এখন ঘিয়ের চেয়ে তেলের দাম বেশি। তেলের পাশাপাশি ঘিয়ের দাম কেজিপ্রতি ২০৮ রুপি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৫৫ রুপি। মঙ্গলবার হঠাৎ করে ভোজ্য তেল ও ঘিয়ের দাম রেকর্ড পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ক্রেতারাও বিপদে পড়েছেন।

 

করাচিতে ইউটিলিটি স্টোরস করপোরেশনের বরাত দিয়ে ডন অনলাইন জানিয়েছে, মঙ্গলবার (১ জুন) থেকে সরকার নির্ধারিত নতুন দাম কার্যকর হবে। তবে কী কারণে সরকার এক লাফে ঘি ও তেলের দাম এতোটা বাড়িয়েছে তার কোনো ব্যাখ্যা দেয়নি সংস্থাটি। ডন অনলাইন জানিয়েছে, ঘিয়ের দাম ২০৮ রুপি বাড়ানো এখন থেকে খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি ৫৫৫ রুপি এবং তেলের দাম ২১৩ রুপি বাড়ানোয় প্রতি লিটার ৬০৫ রুপিতে বিক্রি হবে।

 

ভোজ্য তেলের জন্য পাকিস্তান পুরোপুরিই আমদানি নির্ভর। দেশটির আমদানিকৃত সিংহভাগ পাম তেল আসে ইন্দোনেশিয়া থেকে। পাকিস্তান তার মোট আমাদিকৃত ভোজ্যতেলের ৮৭ শতাংশ ইন্দোনেশিয়া থেকে এবং মাত্র ১৩ শতাংশ মালয়েশিয়া থেকে আমদানি করে। তবে গত মাসে ইন্দোনেশিয়া পাম তেলের রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় পাকিস্তানকে সঙ্কটের মুখে পড়তে হয়।

 

হঠাৎ করে পাকিস্তানে দ্রব্যমূল্যের এই ঊর্ধ্বগতির জন্য ব্যাপক মুদ্রাস্ফিতিকে দায়ী করা হচ্ছে। দেশটিতে এপ্রিলে মুদ্রাস্ফিতি বৃদ্ধির হার ছিল ১৩ দশমিক ৪ শতাংশ। গত বছরের তুলনায় দেশটিতে খাদ্যপণ্যের দাম বেড়েছে ১৭ দশমিক ৩ শতাংশ এবং পরিবহন ব্যয় বেড়েছে ৩১ দশমিক ৮ শতাংশ।

সংবাদটি শেয়ার করুন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

Recent Comments

No comments to show.