কলেজে বন্ধুর থেকে ১০ টাকা নিয়েছিলেন আর দেননি, সে বন্ধুও ক্ষমা করেনি

Prothom alo news

এইতো কাঁচা আমের সিজন। মন চাইলো আর ঢিল মেরে নিয়ে গেলেন। মালিকের অনুমতি ছিলোনা। এর মূল্য চুকাতে হবে। চড়া মূল্য। গ্রামের বাড়িতে আম-জাম, কাঁঠাল চুরি, শসা ক্ষীরা, তরমুজ এগুলো চুরি করে খেয়ে থাকলে ক্ষমা চেয়ে নিন। একেবারেই মালিককে পাওয়া সম্ভব না হলে তার নামে সদাকা করুন, তার জন্য দোয়া করুন আল্লাহর কাছে এবং এর গুনাহ্ থেকে ক্ষমা চান।

লেখাঃ অাব্দুল হাই মোহাম্মাদ সাইফুল্লাহ্: কলেজে থাকতে এক বন্ধুর কাছ থেকে ১০ টাকা নিয়েছিলেন। পরে আর শোধ করেননি, সে বন্ধুও ক্ষমা করেনি।

আজ একযুগ পেরিয়ে গেলো।কারও কিছু মনেই নেই। কিন্তু একদিন সে আপনার সামনে ক্ষমাহীন দাবী নিয়ে আসবে। আপনি বড্ড রকমের অবাক হয়ে যাবেন।

দশজনে মিলে টাকা তুলে পার্টি দিলেন। আপনি ক্যাশিয়ার। খরচাদি শেষে দু’টাকা রয়ে গেল পকেটে। তখনই ক্লিয়ার করুন। নাহলে ভাগের বিশ পয়সা একদিন ওরা চাইবে। আর ধন-সম্পদ, জমি-জমা, জনগণের রিলিফের চাল-আটা, রাস্তার টাকা, বয়স্কভাতা, জাতীর টাকা মেরে দেওয়ার বিষয়তো অনেক অনেক উপরে।

পথে একটা মেয়ের দিকে নজর পড়লো। মুহূর্তেই আল্লাহর ভয়ে চোখ নামিয়ে নিলেন। কিন্তু শয়তান আপনাকে আবার তাকাতে বাধ্য করলো। ভালো লাগলো। আবার কয়েক সেকেন্ড দেখলেন। পরেরবার আপনার পক্ষে নয়। এই কয়েক সেকেন্ডও পাপের খাতায় লিখা হবে।

পরের কয়েক সেকেন্ড কে গুনাহ্ মনে করে ক্ষমা চেয়েছেন কখনো রব্বে কারীমের কাছে? পথে হাটঁছেন। হঠাৎ একটা কুত্তা দেখে হুদ্দাই একটা ইট নিয়ে মেরে দিলেন। কুত্তা ব্যথা পেল, এতে কার কি? ডাজন্ট ম্যাটার। এটারও পরিপূর্ণ বদলা নেয়া হবে। অপেক্ষায় থাকা কাউকে ফোন কলে বললেন এইতো বেরিয়েছি, অথচ আপনি বেরুননি। এটা মিথ্যা। পাপ লিখা হবে। লঘু নয়, গুরুতর।

এইতো কাঁচা আমের সিজন। মন চাইলো আর ঢিল মেরে নিয়ে গেলেন। মালিকের অনুমতি ছিলোনা। এর মূল্য চুকাতে হবে। চড়া মূল্য। গ্রামের বাড়িতে আম-জাম, কাঁঠাল চুরি, শসা ক্ষীরা, তরমুজ এগুলো চুরি করে খেয়ে থাকলে ক্ষমা চেয়ে নিন। একেবারেই মালিককে পাওয়া সম্ভব না হলে তার নামে সদাকা করুন, তার জন্য দোয়া করুন আল্লাহর কাছে এবং এর গুনাহ্ থেকে ক্ষমা চান।

একজন নেতা টাইপ লোককে দেখে সালাম দিলাম। তারপর রিক্সাওয়ালা গেলেন।সালাম দিলাম না। মনে ভাব হয়েছিল, আরে একে কি সালাম দিব! অথবা বাচ্চা, দারোয়ান, কুলি টাইপ কেউ সালাম দিলো, সালামটা নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করলাম না। বিচারের ময়দানে এগুলো মোটাদাগে জিজ্ঞেস করা হবে।

টালী খাতা আছে। সদা সর্বদা প্রস্তুত লেখকদ্বয় আছেন। লিখে রাখছেন সব। একদিন পেশ করা হবে। আমরা প্রচুর অবাক হবে বলবো,

‎ مَالِ هَٰذَا ٱلْكِتَٰبِ لَا يُغَادِرُ صَغِيرَةً وَلَا كَبِيرَةً إِلَّآ أَحْصَىٰهَا

এ কেমন হিসাব নামা? ছোট থেকে বড় কিছুই যে ছাড়া হলোনা![সূরা কাহফ: ৪৯] তাই হিসাব সহজের জন্য দোয়া করা আমাদের দায়িত্ব, কারন হিসাব মিলানো আমাদের দারা অসম্ভব !

‎”اللهم حاسبني حسابا يسيرا” হে মালিক! আমার হিসাবকে সহজ করে নিন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related posts

Leave a Comment