• সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম
রাজশাহীর পুঠিয়ায় পহেলা বৈশাখ-১৪৩১ শুভ বাংলা নববর্ষ উদযাপন রাজশাহীর পুঠিয়ায় বিয়ের দাওয়াত খেতে এসে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু ঈদ পূর্ণমিলন এস.এস.সি ১৯৯৯ বনাম ২০০০ প্রীতি ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত রাজশাহীর পুঠিয়ায় বিধবা নারীর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন এ্যাডঃ জালাল উদ্দীন উজ্জ্বল বাগমারা বাসিকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক সোহেল রানা বাগমারাবাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন, এমপি আবুল কালাম আজাদ ম্যানেজার নেজামকে উদ্ধার করে পরিবারের নিকট ফিরিয়ে দিয়েছে র‍্যাব দুই হাতুড়ির দাম ১ লাখ ৮২ হাজার, দুটি পাইপ কাটারের দাম ৯২ লাখ টাকা নেশা থেকে ফেরাতে না পেরে কুড়াল দিয়ে সন্তানকে কুপিয়ে হত্যা

১০ বছর আগে ক্লাসের সবচেয়ে সুন্দরী মেয়েটাও আজ ২ সন্তানের ‘মা’

সংবাদদাতা:
সংবাদ প্রকাশ: শনিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২২
প্রথম আলো
১০ বছর আগে ক্লাসের সবচেয়ে সুন্দরী মেয়েটাও আজ ২ সন্তানের 'মা'

১/ ১০ বছর আগে ক্লাসের সবচেয়ে সুন্দরী নজর কাড়া মেয়েটাও এখন দুই সন্তানের মা, কিন্তু সেই রুপ আর নাই। ২/সব পরীক্ষায় নকল করে পাস করা। ৩/ছেলেটিও এখন বিসিএস ক্যাডার। ৪/ক্লাসের পড়াশুনোয় সবচেয়ে বেশি সময়, ব্যয় করা ছেলেটিও এখন বেকার ঘুরছে।

৫/অন্যের গার্ল ফ্রেন্ড ভাগিয়ে নিয়ে যাওয়া
বাইকওয়ালা ছেলেটার হবু বউও এখন আরেক প্রতিষ্ঠিত টাকাওয়ালার বিয়ে করা বউ/৬/ ৮ বছর আগে ক্লাসে সবচেয়ে অহংকার নিয়ে চলাফেরা করা ছেলেটাও এখন ঋণের বোঝা নিয়ে কোন মতে বেচে আছে।

৭/  ১০ বছর আগে ক্লাসের লাস্টে বসা
প্রতিনিয়ত খারাপ রেজাল্ট করা ছেলেটাও
এখন ডাক্তারি পড়া শেষ করে ফেলেছে। ৮/  ৬-৭ বছর ধরে বারবার বয়ফ্রেন্ড চেঞ্জ করা
ফর্সা সুন্দরী মেয়েটাও এখন পাত্র পক্ষের কাছে
বার বার রিজেক্ট হচ্ছে।

৯/ ৫ বছর আগের সবচেয়ে সেরা জুটিটা
এখন একজন আরেকজনের ব্লক লিস্টে। ১০/ ৭-৮ বছর ধরে নিজের ইচ্ছামতো একের
পর এক প্রেম করা মেয়েটিও এখন নিজের
অনিচ্ছায় অপছন্দের মানুষের সাথে সংসার করছে।

১১/ ১০ বছর আগে আড্ডা জমানো ছেলেটাকে
বন্ধু সার্কেল থেকে সরিয়ে দেওয়া মানুষটা
এখনো বন্ধুত্তহীনতায় ভুগছে।

কখন কার কপালে(ভাগ্যে) কি ঘটে তা আগে থেকে জানা সম্ভব নয়। অর্থ-বিত্ত, রুপ-গুনের কারনে সাময়িক কিছু দিনের জন্য আপনি-আমি হয়তো সময়কে নিজের মতো করে চালাতে পারবো। কিন্তু সময় সবসময় আমার-আপনার, ইচ্ছামত চলবে, এমন আশা করা টা সবচেয়ে বড় ভুল। সময় সময়ের মতো করে শোধটা নিয়ে নেয়। জিবনে সততা নিয়ে বাঁচতে হবে

এত অহংকার কিসের আমাদের। জীবনের প্রথম গোসল করছি অন্যজনের হাতে, শেষ গোসল টা ও হবে অন্যজনেরই হাতে না।

বিশেষ দ্রষ্টব্য ছবিটি কেবলমাত্র প্রতীকী এবং মোটিভেশনাল করার জন্য ব্যবহার করা হয়েছে

সংবাদটি শেয়ার করুন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

Recent Comments

No comments to show.