বাংলাদেশের জলবায়ু অভিযোজন প্রকল্প

প্রথম আলো

বাংলাদেশ সরকার দেশের উপকূলীয় দ্বীপ এবং নদীর চরে বসবাসকারী দুর্বল জনগোষ্ঠীর জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা বাড়ানোর লক্ষ্যে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। অ্যাডাপ্টেশন ইনিশিয়েটিভ ফর ক্লাইমেট ভালনারেবল অফশোর স্মল আইল্যান্ডস অ্যান্ড রিভারাইন চারল্যান্ড ইন বাংলাদেশ শিরোনামের প্রকল্পটির চারটি উপাদান রয়েছে। সূত্র: A24 News Agency

প্রথমটি জলবায়ু-স্থিতিস্থাপক আবাসন, বিদ্যুতায়ন এবং জলবায়ু নিরোধক পানি সরবরাহের মাধ্যমে পরিবারের জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা বাড়ানোর সাথে সম্পর্কিত এবং দ্বিতীয়টি জলবায়ু-স্থিতিস্থাপক অবকাঠামো, জলবায়ু ঝুঁকি ম্যাপিং এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতির মাধ্যমে সম্প্রদায়ের জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা বৃদ্ধি করার।

তৃতীয় উপাদানটি হল জলবায়ু-সহনশীল জীবিকার অনুশীলনের জন্য নির্বাচিত পরিবারগুলিকে উদ্ভাবন এবং সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে সম্প্রদায়ের আয় এবং খাদ্য নিরাপত্তার উন্নতি করা যেখানে চতুর্থটি চরগুলিতে জলবায়ু সহনশীল উন্নয়নের জন্য সম্প্রদায়, সরকার এবং নীতিনির্ধারকদের জ্ঞান এবং সক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

দ্বীপটির সার্বিক অবস্থা নিয়ে জানান আসলাম শেখমাঝি,যিনি কান্দি দ্বীপের একজন কৃষকও, “গত এক বছর ধরে নদীর তীর ক্ষয় হচ্ছে। এর আগেও এটি ক্ষয়ে গিয়েছিল এবং পুরো দ্বীপটি দুই বছর ধরে পানির নিচে ছিল। আবার যখন দ্বীপটি উপরে উঠেছিল, আমরা সবাই আবার এখানে ফিরে এসেছি। আমাদের এখানে বিদ্যুত, স্কুল, মাদ্রাসা, কলেজ সবকিছু ছিল। এখন এখানে কলেজ নেই।

তবে এখানে একটি স্কুল এবং একটি নারী ও পুরুষ মাদ্রাসা এখনও রয়েছে। আমাদের ছেলেমেয়েরা সেগুলোতে পড়ে। এই জায়গাটা আবার ভাঙলে আমাদের ছেলেমেয়েদের পড়ালেখা বন্ধ হয়ে যাবে। তাদের ভবিষ্যৎ নষ্ট হবে। এসব জমিতে আমরা ব্ল্যাকবেরি চাষ করছি। এটা আমরা দশ দিন আগে থেকে সংগ্রহ করি। আমরা ব্ল্যাকবেরি, পেঁয়াজ, রসুন ইত্যাদি চাষ করি এবং নিচু জমিতে বোরো ধান ও হাইড্ডা ধান চাষ করি যাকে আয়ুস ধান বলা হয়।

আরেক স্থানীয় কৃষক শাহজাহান শেখ জানান, “আগে আমরা চর জানাজায় থাকতাম। চর জানাজা নদী ভাঙনের পর আমরা মাঝি কান্দি নামের এখানে চলে আসি। আমরা আবার চাষ শুরু করেছি। সরকার এখানে স্কুল, কলেজ সবই প্রতিষ্ঠা করেছে। কিন্তু এই জায়গাটা আবার ক্ষয়ে গেছে। এখন সরকার ক্ষয়রোধী বাঁধ তৈরি করেছে।”

এদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক খলিলুর রহমান অভিযোজন প্রকল্পকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এটি পানির অতিরিক্ত প্রবাহের প্রভাব অনেক কমিয়ে দেবে।

তিনি পানি বৃদ্ধির জন্য দায়ী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণের জন্য উপকূলীয় অঞ্চলের চারপাশে একটি সবুজ বেল্ট তৈরি করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান, “দ্বীপগুলিকে রেইন ট্রি বা বাঁধের সাথে অন্য যে কোনও গাছের মতো গাছের বৈজ্ঞানিক আর্বোরিকালচার দ্বারা বেষ্টিত করা দরকার। এসব উদ্যোগ পানির
অতিরিক্ত প্রবাহের প্রভাব কমিয়ে দেবে।

বাতাসে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের উপস্থিতি বেড়ে গেলে পানির স্তর বেড়ে যায়। মাইক্রো লেভেলের উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, বাতাসে কার্বন-ডাই-অক্সাইড বাড়লে তা কমানোর কিছু নেই। কিন্তু প্রকৃতিতে গাছ পাতা দিয়েই খাবার তৈরি করে। প্রক্রিয়াটিকে সালোকসংশ্লেষণ বলে।

এই প্রক্রিয়ায় কার্বন-ডাই-অক্সাইডের প্রয়োজন হয়। আমরা যদি উপকূলীয় অঞ্চলগুলির চারপাশে সবুজ-বেল্ট তৈরি করতে পারি যেটা তেমন একটা নতুন ধারণা নয় এবং এটা বহু বছর ধরে প্রতিষ্ঠা করতে পারি, তাহলে পানি বৃদ্ধির জন্য দায়ী কার্বন-ডাই-অক্সাইড শোষণ করতে পারবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related posts

Leave a Comment