শ্রীলঙ্কার স্বাস্থ্য খাতে গুরুত্বপূর্ণ সহায়তা প্রদান করে চলেছে এডিবি

প্রথম আলো

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) শ্রীলঙ্কার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অ্যাম্বুলেন্স এবং যানবাহনের একটি বহর দান করেছে, যা তাদের সারা দেশের হাসপাতালে হস্তান্তর করেছে। প্রাক্তন স্বাস্থ্য, পুষ্টি এবং দেশীয় ওষুধ মন্ত্রী ডাঃ রাজিথা সেনারত্নে বলেছেন যে এডিবি দীর্ঘদিন ধরে দেশের স্বাস্থ্য খাতে প্রবলভাবে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। তিনি আরও যোগ করেন যে সরকার বিগত সাম্প্রতিক বছরগুলিতে এই খাতকে সমর্থন করার জন্য যথেষ্ট কাজ করেনি। তিনি অসুস্থ এবং অভাবীদের সমর্থন করার জন্য ব্যাঙ্কের অনুদানের গুরুত্ব এবং প্রাণশক্তির উপর জোর দেন। সূত্র: A24 News Agency

ডাঃ রাজিথা সেনারত্নে বলেন, আমরা এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্ক থেকে প্রায় ২৫ টি অ্যাম্বুলেন্স এবং ৩৮ টি ডাবল ক্যাব পেয়েছি। আমার সময়ে, আমি স্বাস্থ্য মন্ত্রকের কাছে ৩৫০ টি অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে এসেছি, যার সবকটিই ছিল জার্মানিতে তৈরি বেঞ্জ এবং ফোর্ড অ্যাম্বুলেন্স। আমার মনে হয় এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক আবারও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে জাপানের তৈরি অ্যাম্বুলেন্স দান করেছে।

এগুলি শুধু অ্যাম্বুলেন্স নয়, সাধারণত ভ্যানের সঙ্গে বিভিন্ন যন্ত্রপাতি সংযুক্ত করে অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তরিত করা হয়। কিন্তু আমার সময়ে, আমি এগুলোকে একচেটিয়াভাবে অ্যাম্বুলেন্স সেবার জন্য নিয়ে এসেছি। অন্য কিছুর জন্য নয়। তাই তারাই আমাদের আসল অ্যাম্বুলেন্স। গত আড়াই বছর ধরে, এই সরকার স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নতির জন্য কোন পদক্ষেপ নেয়নি। তাই, আমি মনে করি যে সরকার কিছুই করছে না।

এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্কের অনুদানের মাধ্যমে এই দান দেশের অসুস্থ মানুষের জন্য একটি মহান সেবা। সেনারত্নের মতো একই কথা বলেছেন অ্যাসোসিয়েশন অফ হেলথ প্রফেশনালস-এর সভাপতি জনাব রবি কুমুদেশ। তিনি বলেন, সরকার দেশে স্বাস্থ্য সেবার উন্নতির জন্য ট্যাক্স থেকে পর্যাপ্ত অর্থ ব্যয় করেনি। তিনি আরও বলেন যে তারা কোনও ভাবেই স্বাস্থ্য সেবার মান বজায় রাখার জন্য যথেষ্ট কাজ করেনি।

তবুও তিনি বলেন যে স্বাস্থ্য সেবার উন্নতির জন্য আন্তর্জাতিক ফোকাসের অধীনে শ্রীলঙ্কায় স্বাস্থ্য সেবার নীতি-নির্ধারণ বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো এগিয়ে চলেছে।তাঁর মতে, আমাদের দেশে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্কের (এডিবি) চলমান হেলথ কেয়ার ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট হল আমাদের দেশের স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার অন্যতম বৃহৎ দাতা।

এর বেশিরভাগ কর্মসূচির উদ্দেশ্য হল স্বাস্থ্য সেবার ভবিষ্যত সুবিধা। আমরা এটাও জানি যে আমাদের দেশের সরকার স্বাস্থ্য সেবার কর ব্যয় থেকে যে পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ করে তা স্বাস্থ্য সেবার মান বজায় রাখার জন্য কোনওভাবেই যথেষ্ট নয়। এই আন্তর্জাতিক ফোকাসের অধীনে স্বাস্থ্য সেবা এখন সম্পূর্ণরূপে বিশ্বের বাকি অংশের তুলনায় এগিয়ে।

সুতরাং, শ্রীলঙ্কা হল অন্যতম প্রধান দেশ যেখানে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্কের স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়ন প্রকল্প দ্বারা আন্তর্জাতিক ফোকাস দেওয়া হয়। এই প্রকল্পটি সর্বদা স্বাস্থ্য সেবার উন্নতির লক্ষ্যে এই দেশ তাদের নীতি প্রণয়নের জন্য একধরনের প্রভাব বিস্তার করে। এর মাধ্যমে আমাদের দেশের স্বাস্থ্যসেবায় একটি নির্দিষ্ট আলোচনা ও সংলাপ হয়। তাই, শ্রীলঙ্কার একটি আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সেবা থাকা দরকার।

জনাব রবি কুমুদেশ আরও বলেন, এই প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান আমাদের সহায়তা করছে। আমাদের দেশের প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা খাতের উন্নয়নে বিশেষ করে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ফান্ডের অবদান বিশাল।

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এটি বৃদ্ধির জন্য চাপ অব্যাহত রেখেছে। প্রাথমিক পরিচর্যার ক্ষেত্রে এমন একটি স্তর পর্যন্ত যা আমরা চিন্তাও করি না।কারণ আমাদের দেশে বর্তমানে এমন একটি স্বাস্থ্য সেবা রয়েছে যা অসংক্রামক রোগের প্রতি খুব বেশি মনোযোগ দেয় না এবং সংক্রামক রোগের দিকে খুব বেশি মনোযোগ দেয়। অসংক্রামক রোগ আমাদের দেশে সবচেয়ে সাধারণ স্বাস্থ্য সমস্যা যা আমরা মোকাবেলা করি। দেশের ৮২-৮৩ শতাংশ মৃত্যুর জন্য অসংক্রামক রোগ দায়ী।

তাই প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবার মাধ্যমেই আমরা অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধ এবং নিয়ন্ত্রণ করতে পারি। প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা সুবিধাগুলিতে প্রাপ্ত সুবিধাগুলি অত্যন্ত দুর্বল যা আমাদের দেশের প্রধান হাসপাতালে নেয়া হয় এমন লোকদের দুর্ভোগ এবং এর বাইরে চলে যাওয়া রোগগুলি প্রতিরোধ করার জন্য ব্যবহার করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related posts

Leave a Comment