কম্বোডিয়ায় চালের গুণগতমান ও উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য এডিবি’র অর্থায়ন

বিডি নিউজ২৩

কম্বোডিয়ায় এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক একটি জলবায়ু-বান্ধব চাল বাণিজ্যিকীকরণ প্রকল্প চালু করার মাধ্যমে মূলত জীবিকা নির্বাহযোগ্য চাল খাতকে একটি বাণিজ্যিক শিল্পে রূপান্তরিত করতে চেষ্টা চালাচ্ছে। প্রকল্পটি বৃহত্তম ধান উৎপাদনকারী প্রদেশ বাটামবাং, কাম্পং থম এবং প্রে ভেং-এর কৃষকদের চালের মান শৃঙ্খলে উৎপাদন ও দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করবে। এটি কৃষি সম্পদ ব্যবস্থাপনাকেও শক্তিশালী করবে। সূত্র: A24 News Agency

 

এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মিঃ অ্যান্টনি গিল জানান, জলবায়ু-বান্ধব ধান বাণিজ্যিকীকরণ প্রকল্প অতিরিক্ত অর্থায়নের মাধ্যমে কম্বোডিয়ার ক্ষুদ্র ধান চাষীদের দারিদ্র্যতা থেকে বের হতে এবং কম্বোডিয়া ও বিদেশে চালের বাজারে তাদের আরও ভাল প্রবেশাধিকার পেতে সহায়তা করবে।

 

কম্বোডিয়ায় এডিবির অনেক প্রকল্প। এ প্রকল্পগুলির মাধ্যমে আমরা টেকসইভাবে দারিদ্র্যতা কমাতে চাই, বিশেষ করে কম্বোডিয়া জুড়ে ক্ষুদ্র কৃষকদের । অতিরিক্ত অর্থায়নের এই প্রকল্পটি বাটামবাং, কাম্পং থম এবং প্রে ভেং প্রদেশের উপর দৃষ্টিপাত করবে।” এ প্রকল্পে জৈব সার ব্যবহার করে জমি এবং জলজ সম্পদের যত্ন নেওয়া হবে। প্রকল্পটি কম্বোডিয়ার ক্ষুদ্র কৃষকদের তাদের দারিদ্র্য থেকে বেরিয়ে আসতে এবং কম্বোডিয়া ও বিদেশে উভয় জায়গায় ধানের বাজারে তাদের আরও ভাল প্রবেশাধিকার পেতে সহায়তা করবে।

 

মিঃ গিলের মতে, “প্রকল্পটি ক্ষুদ্র ধান চাষিরা যে সীমাবদ্ধতার সম্মুখীন হয় তা মোকাবেলা করার চেষ্টা করবে, যা ধান চাষের ইনপুট যেমন বীজ ধানের অ্যাক্সেসের অভাব এবং ভাল দামে চাল বিক্রি করার জন্য বাজারে অ্যাক্সেসের অভাব।“ তিনি আরও বলেন, আমরা একটি জলবায়ু-বান্ধব ধান বীমা প্রকল্পও প্রবর্তন করছি যাতে ক্ষুদ্র কৃষকরা খারাপ আবহাওয়ার বিরুদ্ধে বীমা করতে সক্ষম হবে।

 

তাই জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে যে কোনো বছরে ধানের ফলনে নেতিবাচক প্রভাব পড়লে, তখন তারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে এই বিমা প্রকল্পের মাধ্যমে উৎপাদনের অভাবের জন্য ক্ষতিপূরণ পাবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে, এটি একটি সহ- প্রদান, তাই কৃষক একটি বীমা প্রিমিয়ামের ৫০% প্রদান করবে এবং প্রকল্পটি বীমা প্রিমিয়ামের ৫০% প্রদান করবে এবং এটি তাদের খারাপ বছরে ঋণের মধ্যে ফিরে যাওয়া বন্ধ করতে সহায়তা করবে।

 

জনাব নীল সোফহ্যাপ যিনি স্থানীয় কৃষক ও এ সম্প্রদায়ের নেতা জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছর ধানের ফলন ভালো কারণ এ বছর আগের বছরের তুলনায় ভালো বৃষ্টিপাত হয়েছে। আমি যে এলাকায় থাকি সেখানে সেচ ব্যবস্থা কৃষিকাজের জন্য খুবই সুবিধাজনক এবং এটি এই বছরের ফলনও উন্নত হওয়ার এটি একটি কারণ। একই কথা বলেন আরেক কৃষক মিঃ ইয়াত ভুথিও, এই বছর আমি মাত্র ০.৮ হেক্টর জমিতে চাষ করেছি, কিন্তু আগের বছরগুলোর তুলনায় আমি ভালো লাভ পেয়েছি। আমি ৫০০ ডলারেরও বেশি উপার্জন করেছি।

 

যেসব কারণে আমার লাভ হয়েছে তাহল, আমি রাসায়নিক সার ব্যবহার না করে জৈব ও নিরাপদ সারে চলে এসেছি। আগে আমি থাইল্যান্ড থেকে ফিরে এসে শুধু রাসায়নিক সার ব্যবহার করেই কৃষিকাজ করতাম। ফসল তোলার সময় একটু ফলন পেতাম, কিন্তু তা রাসায়নিক সার কেনার ঋণ শোধ করার মতো যথেষ্ট ছিল না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related posts

Leave a Comment