ইসলামাবাদ (বিডি নিউজ২৩): পাকিস্তানের পেশোয়ারে ইসলামি শিক্ষাকেন্দ্রে বি:স্ফোর’ণে হত কমপক্ষে ৭জন। জ’খম ৭০ এর ওপর। নাম প্র’কাশে অ’নিচ্ছুক জনৈক পু’লিশ’কর্তা’কে উ’দ্ধৃত করে সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের খবর,

এদিকে এ ঘ’টনার পরপরই প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান একটি বার্তা প্রকাশ করেছেন সেখানে তিনি বলছেন এগুলো ঘ’টনা যারা ঘ’টিছেন তারা অবশ্যই স’ন্ত্রা’স, এদের অবশ্যই দ’মন করা হবে। এছাড়াও তিনি আরো বলেছেন ইসলাম ধর্মে স’ন্ত্রাসে’র কোন স্থান নেই। ইসলাম শান্তির ধর্ম। মাদ্রাসায় কোরআন শিক্ষা দেওয়া হচ্ছিল। এসময় যারা হা’মলা করেছে তারা অবশ্যই স’ন্ত্রা’স।
যারা ইসলাম ধর্ম নাম বিক্রি করে হা’মলা-মা’মলা, মা’রামা’রি করছেন, তারা অবশ্যই ইসলাম ধর্মের লোক নয়। এরা মূলত নিজের স্বার্থ হাসিল করার জন্য ইসলাম ধর্মকে কাজে লাগাচ্ছেন। প্রকৃতপক্ষে ইসলামের শিক্ষা হচ্ছে শান্তি। এখানে যারা অ’শান্তি করছে তারা অবশ্যই স’ন্ত্রা’স এটা মনে রাখতে হবে আমাদের এভাবেই প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলছিলেন। এছাড়াও ইসলামাবাদের শান্তিপ্রিয় মানুষের বলেছেন অতি দ্রুত এদেরকে দ’মন করতে হবে নইলে ইসলামের নাম ভা’ঙিয়ে যারা চলছেন তারা পুরো বিশ্বে ইসলাম এর মান মর্যাদা ন’ষ্ট করছেন।
এছাড়াও সেখানকার মাওলানারা বলছেন, ইসলামে সন্ত্রাসের কোন স্থান নেই। আর সন্ত্রাস কখনো মুসলিম হতে পারে না।
পাকিস্তানের উত্তর পশ্চিমের পেশোয়ারে জামিয়া জুবেইরিয়া মসজিদের মূল ভবনে এক মাদ্রাসায় জনৈক মৌলবি ইসলামের শিক্ষার ওপর ভাষণ দিচ্ছিলেন মঙ্গলবার সকালে।
আচমকা বি’স্ফোর’ণে প্রচুর লোক হ’তাহ’ত হন। জ’খম লোকজনকে লেডি রিডিং হা’সপা’তালে পাঠানো হয়।সেখানকার এক মুখপাত্র সাত মৃ’ত ও কম পক্ষে ৭০ জখম লোকজনকে আনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন। অ’জ্ঞাত’পরি’চয় লোকজন একটি প্লা’স্টিকের ব্যাগে বি’স্ফোর’ক ভরে মসজিদে রেখে গিয়েছিল বলে প্রাথমিক ত’দন্তে প্র’কাশ। তবে এতে কাদের হাত রয়েছে, তা এখনও স্প’ষ্ট নয়।
দক্ষিণ পশ্চিমের কোয়েটা শহরে বো’মা বি’স্ফোর’ণে তিনজনের মৃ’ত্যুর দুদিন বাদে পেশোয়ারের না’শক’তা ঘ’টল। সকাল সাড়ে আটটায় বি’স্ফোর’ণ হয় বলে খবর। পেশোয়ারের পু’লিশ প্রধান মহম্মদ আলি খান বলেছেন, পড়ুয়ারা কোরান পড়ছিল। তখনই বি’স্ফোর’ণ হয়। প্রাথমিক ত’দন্তে জানা গিয়েছে, ৫-৬কেজি বি’স্ফোর’ণ ব্যবহার করা হয়েছে।
কেউ একজন এখানে এসে বি’স্ফোর’কভ’র্তি ব্যাগ রেখে যায়। প্রাদেশিক পু’লিশে’র বো’মা নি’ষ্ক্রিয়’কর’ণ বা’হিনী’র প্র’ধান সাফাকত মালিক জানিয়েছেন, ওই বি’স্ফোর’ক বেশ উন্নত মানের ছিল, টা’ইমার ডি’ভাই’স ছিল তাতে। (তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা)
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *